হঠাৎ রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি অদৃশ্য হয়ে যায়

টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাতকারে প্রেসিডেন্টের চিফ অব স্টাফ গোলামহোসাইনি ইসমাইলি বলেন, গত রোববার দুর্ঘটনার দিন রাইসির বহরে থাকা অন্য একটি হেলিকপ্টারে অবস্থান করছিলেন তিনি। ঘটনার দিন দুপুর একটা নাগাদ তিবরিজ শহরের উদ্দেশে রওনা হন রাইসির বহরের তিনটি হেলিকপ্টার। 

ইসমাইলি বলেন, সেসময় আবহাওয়া স্বাভাবিক ছিল। প্রেসিডেন্টকে বহনকারী হেলিকপ্টার মাঝখানে ছিল। পুরো বহরের দায়িত্বে ছিল প্রেসিডেন্ট রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারের পাইলটের ওপর। যাত্রা শুরুর প্রায় ৪৫ মিনিট পর রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারের পাইলট অন্য দুটি হেলিকপ্টারের পাইলটকে ঘন মেঘ এড়িয়ে যেতে আরও উঁচুতে উঠে ভ্রমণ করার নির্দেশ দেন। 
ইসমাইলি বলেন, ওই সময় হঠাৎ রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি অদৃশ্য হয়ে যায়। ঘন মেঘের ওপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার ৩০ সেকেন্ড পর আমাদের পাইলট প্রথম খেয়াল করেন, প্রেসিডেন্টকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি দেখা যাচ্ছে না। এরপর আমাদের পাইলট বৃত্তাকারে ঘুরতে থাকেন। হেলিকপ্টারটি খুঁজতে থাকেন।

রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারের সঙ্গে বেশ কয়েকবার রেডিও ডিভাইসে যোগাযোগের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন অন্য হেলিকপ্টারের পাইলট। এরপর তাদের হেলিকপ্টারটি উচ্চতা কমিয়ে আনে এবং পাশের একটি তামার খনিতে অবতরণ করে, এমনটাই জানান গোলামহোসেইন ইসমাইলি।

ইসমাইলি আরও বলেন, ওই সময় ‘অদৃশ্য হয়ে যাওয়া’ হেলিকপ্টারে থাকা পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদোল্লাহিয়ান ও প্রেসিডেন্ট রাইসির নিরাপত্তা ইউনিটের  প্রধানকে বারবার কল করা হয়। কিন্তু তাদের কারোরই সাড়া পাওয়া যায়নি। অন্য দুটি হেলিকপ্টারের পাইলটরা প্রেসিডেন্টের হেলিকপ্টারের পাইলট ক্যাপ্টেন মোস্তাফাভিকে কল করার চেষ্টা করেন। কিন্তু সাড়া পাওয়া যায়নি বলেও জানান ইসমাইলি।

ইসমাইলি বলেন, জটিল ওই পরিস্থিতিতে শুধু রাইসির হেলিকপ্টারে থাকা মোহাম্মদ আলী আল-হাশেমের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়। তার অবস্থা ভালো ছিল না। কিন্তু শুধু জানান, একটি উপত্যকায় তাদের হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়েছে। এরপর ইসমাইল আরেকবার আল-হাশেমকে কল করতে সক্ষম হন। তখনো একই কথা জানান। মোহাম্মদ আলী আল-হাশেম ছিলেন ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লা আলী খামেনির মুখপাত্র।

গোলাম হোসেইন ইসমাইলি বলেন, আমরা যখন বিধ্বস্ত হেলিকপ্টারের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাই, সেখানে সবার মরদেহ দেখি। বুঝতে পারি, প্রেসিডেন্ট রাইসিসহ অন্য ব্যক্তিরা তাৎক্ষণিকভাবে শহীদ হয়েছেন। তবে একমাত্র আল-হাশেম হয়তো ঘণ্টাখানেক বেঁচে ছিলেন। ইরানের রাজধানী তেহরানে বুধবার রাইসির জানাজা নামাজের ইমামতি করেছেন দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি। এছাড়া রাইসিকে শেষবিদায় জানাতে বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিসহ সর্বস্তারের মানুষ জরো হয় তেহরানে। বৃহস্পতিবার রাইসির জন্মস্থান মাশহাদে তাকে দাফন করা হবে।   সূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া বাংলা

এনবিএস/ওডে/সি

news