ঢাকা, শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪ | ৪ শ্রাবণ ১৪৩১
Logo
logo

গাজায় সম্ভাব্য যুদ্ধের জন্য অভিজাত বাহিনীকে প্রস্তুত করছে জার্মানি


এনবিএস ওয়েবডেস্ক     প্রকাশিত:  ২১ অক্টোবর, ২০২৩, ০৭:১০ এএম

গাজায় সম্ভাব্য যুদ্ধের জন্য অভিজাত বাহিনীকে প্রস্তুত করছে জার্মানি

ইসরায়েল, গাজা ও মধ্যপ্রাচ্যে সম্ভাব্য সংকট পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিশেষ বাহিনীর কয়েকটি ইউনিটকে সাইপ্রাসে মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জার্মান সরকার। বুধবার নিরাপত্তা সূত্রের বরাত দিয়ে ট্যাবলয়েড বিল্ডের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

জার্মান সেনাবাহিনীর স্পেশাল ফোর্সেস কমান্ড -কেএসকে পূর্ব ভূমধ্যসাগরের দ্বীপরাষ্ট্রে মোতায়েন করা হয়েছে। বিল্ড বলেন, নেভি স্পেশাল ফোর্সেস -কেএসএম ইউনিট, যাকে কমব্যাট সাঁতারুও বলা হয়, তাকেও ওই এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে। সেখানে জিম্মিদের উদ্ধারে বিশেষায়িত ফেডারেল পুলিশ স্পেশাল ফোর্স ইউনিটকেও পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে ট্যাবলয়েড।

বিল্ডের মতে, ইসরায়েল ও গাজাভিত্তিক ফিলিস্তিনি হামাস জঙ্গিগোষ্ঠীর মধ্যে চলমান উত্তেজনার মধ্যে বার্লিন 'সব পরিস্থিতির' জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। হামাস ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ব্যাপক হামলা চালানোর পর এই সংঘর্ষ শুরু হয় এবং গাজা থেকে খুব বেশি দূরে অবস্থিত ইসরায়েলি বসতিগুলি সংক্ষিপ্তভাবে দখল করে নেয়। ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ওই হামলা ও তার পর জঙ্গিদের সঙ্গে ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর সংঘর্ষের ঘটনায় 1 হাজার ৪০০ জনের বেশি ইসরায়েলি নিহত হয়েছে, যাদের অধিকাংশই বেসামরিক নাগরিক।

হামাসের দাবি, অভিযানের সময় ২০০ জনেরও বেশি মানুষকে জিম্মি করেছে জঙ্গিরা। বিল্ডের মতে, বন্দিদের মধ্যে জার্মান নাগরিকদের 'ডবল ডিজিট নম্বর' রয়েছে। তাদের উদ্ধারের জন্য বিশেষ বাহিনীকে ব্যবহার করা যেতে পারে, ট্যাবলয়েড বলেছে, গাজায় কর্মরত জার্মান নাগরিকদের সরিয়ে নিতে বা ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে সংঘাত ছড়িয়ে পড়লে জার্মানদের লেবানন থেকে বের হয়ে যেতে সাহায্য করার জন্য এই ইউনিটগুলি মোতায়েন করা হতে পারে।

বিল্ডের মতে, প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম এবং এয়ারবাস ৬৫০৫০ অ্যাটলাস এবং লকহিড সি-১৩০ হারকিউলিস সহ বেশ কয়েকটি সামরিক পরিবহন বিমান সাইপ্রাসে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সরকার এরই মধ্যে সংসদীয় কমিটিগুলোকে তাদের প্রস্তুতির বিষয়ে অবহিত করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

বিল্ডের মতে, আমরা ঠান্ডা মাথায় শুরু করার জন্য প্রস্তুত এবং সব বিকল্পের জন্য প্রস্তুত। জার্মান সামরিক বাহিনীর ভাষায় 'কোল্ড স্টার্ট' বলতে বোঝায় প্রস্তুতির উচ্চ অবস্থা যা ইউনিটগুলিকে অবিলম্বে প্রাসঙ্গিক এলাকায় মোতায়েন করার অনুমতি দেবে এবং কোনও অতিরিক্ত প্রস্তুতি ছাড়াই কার্যকর হয়ে উঠবে।

গাজাকে ঘিরে উত্তেজনা অব্যাহত থাকায় এ খবর পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার গাজার একটি হাসপাতালে ধর্মঘটে পাঁচ শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ। অনেক মুসলিম দেশ তাত্ক্ষণিকভাবে এই ঘটনার জন্য ইসরায়েলকে দায়ী করে, যারা এই হামলার সাথে কোন সম্পর্ক অস্বীকার করে এবং স্থানীয় ফিলিস্তিনি জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোকে দায়ী করে। বুধবার মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে ইসরাইলবিরোধী ব্যাপক বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। মরক্কো থেকে ইরান পর্যন্ত রাস্তায় নেমেছেন বিক্ষোভকারীরা।

এদিকে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তেল আবিব সফর করেছেন। সেখানে তিনি ইসরায়েলের প্রতি অবিচল সমর্থনের অঙ্গীকার করেছেন। তিনি হাসপাতালে মঙ্গলবারের হামলার জন্য ইসরায়েলকে দায়ী করার বিষয়টিও অস্বীকার করেছেন।