ঢাকা, শনিবার, জুন ২২, ২০২৪ | ৭ আষাঢ় ১৪৩১
Logo
logo

বিশ্বের নজর এখন নাভালনির স্ত্রী ইউলিয়ার দিকে


এনবিএস ওয়েবডেস্ক   প্রকাশিত:  ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪, ০৪:০২ পিএম

বিশ্বের নজর এখন নাভালনির স্ত্রী ইউলিয়ার দিকে

বিশ্বের নজর এখন নাভালনির স্ত্রী ইউলিয়ার দিকে


রাশিয়ায় সদ্য মারা যাওয়া সরকারবিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনির স্ত্রী ইউলিয়া এক সময় নিজেকে আড়ালে রাখতে পছন্দ করতেন। তিনি বলতেন, জীবনে একজন স্ত্রী ও মা হিসেবেই মূল ভূমিকাটা পালন করতে চান। রাজনীতিতে তার আগ্রহ নেই। তবে সময় বদলেছে। গত শুক্রবার রাশিয়ার সাইবেরিয়া অঞ্চলের একটি কারাগারে নাভালনির মৃত্যু হয়। এরপর মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে বিশ্বনেতাদের সামনে আবেগপূর্ণ এক ভাষণে ইউলিয়া বলেন, তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি এর বিচার চান।

এর মধ্য দিয়ে রাশিয়ার নিপীড়ন-নির্যাতনের শিকার সরকারবিরোধী রাজনীতিকদের মধ্যে একটি গুরুপূর্ণ চরিত্র হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন ইউলিয়া নাভালনায়া। ইউলিয়ার অতীত যেমনই হোক না কেন, সব সময়ই স্বামীর বড় সমর্থক ছিলেন তিনি। ২০২০ সালে যখন অ্যালেক্সি নাভালনির শরীরে ‘নোভিচক’ বিষ প্রয়োগ করা হয়েছিল, তখনও তাকে তৎপর দেখা গিয়েছিল। জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসার জন্য স্বামীকে রাশিয়ার বাইরে নিয়ে যেতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন তিনি।

নাভালনির সমর্থকদের জন্য অনুপ্রেরণা হিসেবেও কাজ করেছিল তার ও ইউলিয়ার প্রণয় ও সংসার জীবন। ইউলিয়াকে বলা হতো রাশিয়ার বিরোধী ‘ফার্স্ট লেডি’। নাভালনিও বলেছিলেন, ইউলিয়াকে ছাড়া একাকি ক্রেমলিনের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে পারতেন না তিনি। মস্কোর সমালোচনায় এতটা দুর্বার হতেও পারতেন না। ইউলিয়ার পারিবারিক নাম ছিল ইউলিয়া আমব্রোসিমোভা। জন্ম ১৯৭৬ সালে মস্কোয়। তাঁর বাবা ছিলেন সর্বজনশ্রদ্ধেয় বিজ্ঞানী বোরিস আমব্রোসিমভ। ইউলিয়া অর্থনীতিতে স্নাতক করেন। সে অনুযায়ী চাকরি শুরু করেছিলেন ব্যাংকে। তবে দুই সন্তানের জন্মের পর চাকরি ছেড়ে দেন তিনি। নাভালনিও তত দিনে রাশিয়ার একজন বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করেন। নাভালনি ও ইউলিয়ার দেখা হয়েছিল তুরস্কে, ১৯৯৮ সালে। এর দুই বছর পর বিয়ে করেন দুজন। তখন কিন্তু নাভালনির ভবিষ্যৎ জনপ্রিয়তার কোনো আঁচ পাওয়া যায়নি।

২০২০ সালে রুশ সাপ্তাহিক সোবেসেদনিককে ইউলিয়া বলেছিলেন, ‘আমি বিখ্যাত হতে যাওয়া কোনো আইনজীবী বা বিরোধীদলীয় নেতাকে বিয়ে করিনি। আমি বিয়ে করেছিলাম অ্যালেক্সি নামের এক তরুণকে।’ নাভালনির রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে ইউলিয়া নাম লিখিয়েছিলেন চলতি শতকের শুরুর দিকে। সে সময় দুজনই লিবারেল ইয়াবলোকো পার্টির সদস্য ছিলেন। তবে নাভালনির শরীরে বিষপ্রয়োগের আগ পর্যন্ত তিনি বলতে গেলে আড়ালেই ছিলেন। জনসম্মুখে আসতেন খুবই কম। তেমন কথা বলতেও দেখা যেত না।