ঢাকা, বৃহস্পতিবার, মে ২৩, ২০২৪ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
Logo
logo

পশ্চিম তার নিজস্ব আর্থিক ব্যবস্থা ধ্বংস করছে দাবি পুতিনের


এনবিএস ওয়েবডেস্ক   প্রকাশিত:  ০২ মার্চ, ২০২৪, ০৫:০৩ পিএম

পশ্চিম তার নিজস্ব আর্থিক ব্যবস্থা ধ্বংস করছে দাবি পুতিনের

পশ্চিম তার নিজস্ব আর্থিক ব্যবস্থা ধ্বংস করছে দাবি পুতিনের

রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের মতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইইউ প্রণীত নীতিগুলি পশ্চিমা ব্যাংকিং এবং এর মুদ্রাকে অবমূল্যায় করেছে। তিনি বলেন, পশ্চিমারা তাদের নিজস্ব মুদ্রা এবং ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থাকে নড়বড়ে করায় বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রতিষ্ঠিত একচেটিয়া ব্যবস্থা ভেঙে পড়ছে।
 

পুতিন বলেন, রাশিয়া তার  ‘বন্ধুত্বপূর্ণ’ দেশগুলির সাথে একত্রে নতুন আর্থিক অবকাঠামো তৈরির দিকে মনোনিবেশ করবে যা রাজনীতিমুক্ত হবে কারণ এটি বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জের মুখে ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা চালাতে চায়।

রুশ এবং বিদেশী কর্মকর্তারা বারবার সতর্ক করেছেন যে মার্কিন ডলার দীর্ঘদিন ধরে একটি অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে, উল্লেখ্য যে এই ধরনের পদক্ষেপগুলি সারা বিশ্বের দেশগুলিকে গ্রিনব্যাকের উপর তাদের নির্ভরতা কমাতে প্ররোচিত করেছে।

পুতিন জোর দিয়ে বলেন, মস্কো তার মিত্রদের সাথে সমতা এবং পারস্পরিক স্বার্থের সম্মানের ভিত্তিতে কাজ করছে বলে আরও বেশি সংখ্যক দেশ ব্রিকস, ইউরেশিয়ান ইকোনমিক ইউনিয়ন এবং সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার মতো গ্রুপে যোগ দিতে চাইছে।

পুতিন বলেন, রাশিয়া তার অংশীদারদের সাথে একসাথে নতুন প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করে ‘নিরাপদ’ পরিবহন করিডোর নির্মাণ চালিয়ে যাবে এবং এমন একটি সময়ে ‘রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ থেকে মুক্ত’ একটি নতুন বৈশ্বিক আর্থিক নেটওয়ার্ক তৈরি করবে যখন বিশ্ব অর্থনীতি, বাণিজ্য এবং অর্থ দ্রুত পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে রাশিয়ার সরকারি জরিপ সংস্থা রোসস্ট্যাটের এক সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে দেশটিতে আয় বৈষম্য আগের চেয়ে বেড়েছে। সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর থেকেই এর অন্তর্ভুক্ত দেশগুলোতে বৈষম্য বেড়ে চলেছে। একই অবস্থা দেখা যাচ্ছে রাশিয়ায়ও। ২০২৩ সালে দেশটির নাগরিকদের মধ্যে আয় বৈষম্য প্রকট হয়েছে।

রোসস্ট্যাট গিনি ইনডেক্স ব্যবহার করে তার এই রিপোর্ট তৈরি করে। এই পদ্ধতিতে একটি জনগোষ্ঠীর মধ্যে আয়ের বণ্টন কীভাবে হবে তা নির্ণয় করা যায়। শূন্য থেকে একের মধ্যে এই পরিমাপ করা হয়। মান যত বেশি হয় বৈষম্যও তত বেশি হয়।

এতে দেখা গেছে, ২০২৩ সালে রুশদের মধ্যে আয় বৈষম্য ছিল ০.৪০৩। অপরদিকে তার আগের বছর অর্থাৎ ২০২২ সালে এই মান ছিল ০.৩৯৫। এ থেকে বুঝা যায় যে, রাশিয়ায় আয় বৈষম্য বেড়েই চলেছে।

রোসস্ট্যাটের রিপোর্টে বলা হয়, ২০২৩ সালে রাশিয়ার সবথেকে এগিয়ে থাকা ১০ শতাংশ মানুষ মোট সম্পদের প্রায় ৩০ শতাংশ আয় করেছেন। অপরদিকে সবথেকে পিছিয়ে পড়া ১০ শতাংশ মানুষ আয় করেছেন মাত্র দুই শতাংশ। বৈষম্য বাড়লেও সার্বিকভাবে ২০২৩ সালে রুশদের আয় বেড়েছে ৭.৮ শতাংশ।