ঢাকা, রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪ | ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
Logo
logo

ইসরায়েলে দিনোমা ও চিমসন ম্যাচে ৫৬ টাইব্রেকারের পর নিষ্পত্তি ঘটলো ম্যাচের


এনবিএস ওয়েবডেস্ক   প্রকাশিত:  ২২ মে, ২০২৪, ১০:০৫ পিএম

ইসরায়েলে দিনোমা ও চিমসন ম্যাচে ৫৬ টাইব্রেকারের পর নিষ্পত্তি ঘটলো ম্যাচের

ইসরায়েলে দিনোমা ও চিমসন ম্যাচে ৫৬ টাইব্রেকারের পর নিষ্পত্তি ঘটলো ম্যাচের

ফুটবল খেলায় সাধারণত ম্যাচের নির্ধারিত সময়ে ফলাফল না হলে খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। সেখানেও সমতা থাকলে ৫টি করে টাইব্রেকারের মধ্য দিয়ে রেজাল্ট নির্ধারণ করেন ম্যাচের রেফারি। কিন্তু এরপরও ম্যাচ ড্র হলে ফিফার নিয়ম অনুসারে সাডেন ডেথে (একটির পর একটি পেনাল্টি) খেলা চলতে থাকে। যাকে ম্যারাথনও বলা হয়ে থাকে। 

এবার এমনই এক ঘটনা ঘটেছে ইসরাইলের তৃতীয় বিভাগের সেমিফাইনালের প্রমোশনের ম্যাচে। ম্যারাথন এই টাইব্রেকার ৫৬ শটে গিয়ে খেলা থামিয়েছে। গত সোমবার ম্যাচটিতে মুখোমুখি হয়েছিলো এসসি দিনোমা ও চিমসন তেল আবিব। যেখানে নির্ধারিত ৯০ মিনিট ও অতিরিক্ত সময়ের খেলা ২-২ গোলে সমতা থাকে। শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি টাইব্রেকারে গেলে ২৩-২২ গোলে জয় তুলে নেয় এসসি দিনোমা। 

এর আগে ফুটবল বিশ্ব ৬৬ কিকের টাইব্রেকারও দেখেছে। সেটা অবশ্য ১৯৯৮ সালে ডার্বি কমিউনিটি কাপের বয়সভিত্তিক দুই দলের মধ্যে। প্রতিপক্ষ ছিল মিকলওভার লাইটিনিং ব্লু সক্স ও চেলাস্টন বয়েজের অনূর্ধ্ব-১০ দল। ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হওয়ায় ফলাফল নির্ধারণে টাইব্রেকার হয়। কিন্তু দুই দল মিলিয়ে ৬৬টি কিক নেয়। অবাক বিষয় জালে বল যায় মাত্র তিনবার। শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকারে ব্লু সক্স ম্যাচটি জিতে নেয় ২-১ গোলে।

আনুষ্ঠানিক ফুটবলে দীর্ঘতম টাইব্রেকারটি হয়েছিল ২০০৫ সালে, নামিবিয়ান কাপে। ফুটবল বিশ্ব এমন টাইব্রেকারও দেখেছে যে কিক নিতে নিতে অন্ধকার নেমে এসেছে চারদিকে। দুই দলই ম্যাচ শেষ না করে মাঠ ছেড়ে চলে গেছে। এক সপ্তাহ ধরেও টাইব্রেকার হওয়ার রেকর্ড রয়েছে। ২০০২ সালে যেটি ঘটেছিল ডমিনিকান নেশনস কাপে। 

তবে স্বীকৃত পর্যায়ের ফুটবলে টাইব্রেকারে সবচেয়ে বেশি শটের আগের রেকর্ডটি হয়েছিল ইংল্যান্ডে। ২০২২ সালের মার্চে আর্নেস্ট আর্মস্ট্রং মেমোরিয়াল কাপে ৫৪ শটের টাইব্রেকারে বেডলিংটনকে ২৫-২৪ গোলে হারায় ওয়াশিংটন। সূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া বাংলা

এনবিএস/ওডে/সি